বিরাট কোহলির মতো রেকর্ড গড়া অভ্যেস করছে সূচক

পার্থসারথি গুহ

বেচারামদের যাবতীয় বল পিটিয়ে ছাতু করে দিচ্ছে কেনারাম ওরফে বুলরা।
ফলে স্কোর বোর্ড অর্থাৎ সূচক পয়েন্টের বন্যায় ভেসে যাচ্ছে।
যার জেরে রোজ নতুন নতুন উচ্চতা গড়ে তোলা অভ্যেসে পরিণত করে ফেলেছে নিফটি ও সেনসেক্স। যার অন্যথা হল না মঙ্গলবারেও। এদিন নিফটি11,760 ছুঁয়ে যেমন রেকর্ড করল ঠিক তেমনই সেনসেক্স প্রায় 38,900 কে ধরে ফেলল।
‌বলাবাহুল্য সেনসেক্সের এই উচ্চতায় যাওয়াও একটা নজির তো বটেই। বস্তুত, ভারতীয় অর্থবাজারের দুই স্তম্ভ নিফটি ও সেনসেক্স যেন ধারাবাহিকতার দিক থেকে পুরো বিরাট কোহলি হয়ে উঠেছে। বিরাট যেমন বলে বলে সেঞ্চুরি করছেন, ঠিক তেমনই নয়া উচ্চতা গড়ে তোলা ভারতীয় শেয়ার বাজারের দুই মাণিকজোড় নিফটি ও সেনসেক্স এর প্রধান কর্তব্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।
মঙ্গলবার ভারতীয় শেয়ার বাজারে বিভিন্ন সেগমেন্টেই নড়াচড়া লক্ষ্য করা গিয়েছে। তবে এত কিছু ভালো খবরের মধ্যেও ভারতীয় শেয়ার বাজারে শূল পীড়ার কারণ হয়ে উঠেছে মিডক্যাপের নেতিবাচক অবস্থান। সাধারণ লগ্নিকারীদের একটা বড় অংশ যে জায়গাতে বেশ ভালোমতোই ফেঁসে বসে আছে। ফলে সূচক জোর যখন তার সর্বোচ্চ অবস্থানে বসে আছে তখন বহু বিনিয়োগকারীকে দেখা যাচ্ছে ঠিকমতো আনন্দ উপভোগ করতে পারছেন না। কারণ শুধালে তেলেবেগুনে জ্বলে উঠে বলছেন। দূর মশাই বাজার বাড়ছে তো আমাদের কি? আমার-আপনার হাতের শেয়ার তো বাড়ছে না। মিডক্যাপের মধ্যে এমনভাবে বহু মানুষ আটকে রয়েছেন। সেই জানুয়ারি থেকে যে মিডক্যাপ ইনডেক্স মাথা নিচু করে বসে আছে বছরের প্রায় 12 আনা পার হয়ে গেলেও তার সেভাবে নড়নচড়ন নেই। তবে শেয়ার বিশেষজ্ঞরা বলছেন মিডক্যাপের ভালো শেয়ারে এখন থেকেই অবস্থান নিতে। যাতে ভবিষ্যতে লাভ ওঠানো যায়। মিডক্যাপের ওপর যেসব মিউচুয়াল ফান্ড রয়েছে তার ন্যাভ স্বাভাবিকভাবে খুব অল্প দামে রয়েছে। বলতে গেলে জলের দরে। বুদ্ধি করে বেশ কিছু মানুষ তাতে অবস্থান নেওয়া শুরু করে দিয়েছে। ভরপুর চাঙ্গা ভারতীয় অর্থবাজারে খারাপ পারফর্ম করতে দেখা গিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের অধিকাংশ শেয়ারকে। বেসরকারি আর্থিক সংস্থার শেয়ারে অবশ্য যথেষ্ট ভালো উদ্দীপনা দেখা গিয়েছে এদিন।