সমকামিতা অপরাধ নয়, জানিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট

এসবিবি, নয়াদিল্লি : সমকামিতা কোনও অপরাধ নয়। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট ঐতিহাসিক রায়ে জানিয়ে দিল। প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ সর্বসম্মতিক্রমে জানায়, সমকামিতার অধিকার বৈধ।

ভারতের মতো সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে সমকামিতার বিষয়টি অপরাধ বলে গণ্য করা হত। ভারতীয় দণ্ডবিধির 377 ধারা অনুযায়ী একই লিঙ্গের মানুষ যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হলে তাদের এতদিন 10 বছর বা যাবজ্জীবন হতে পারত। সেইসঙ্গে জরিমানাও করা হত। কিন্তু শীর্ষ আদালত এদিন পরিস্কার জানিয়ে দেয়, 377 ধারায় সমকামিতার আধিকার খর্ব করা অযৌক্তিক ও অপ্রাসঙ্গিক। দুজন সমলিঙ্গের মানুষ ব্যক্তিগত পরিসরে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হলে তা এখন থেকে আর অপরাধ বলে গণ্য করা হবে না। সুপ্রিম কোর্ট কিছুদিন আগেই ব্যক্তিগত পরিসরের অধিকারকে মৌলিক অধিকারের স্বীকৃতি দেওয়ার পরেই সমকামিদের মনে আশা জাগে। আজ দীপক মিশ্রের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চের সিদ্ধান্ত সেই আশাকে উল্লাসে পরিণত করল।

1860 সালে ব্রিটিশ রাজত্বে সমকামিতার আইনটি তৈরি হয়েছিল। তারপর এই আইনে কোনও পরিমার্জন বা সংশোধন হয়নি। 2009 সালে দিল্লি হাইকোর্ট একটি রায়ে বলে, 377 নম্বর ধারা সংবিধানের মৌলিক অধিকারকে খর্ব করেছে। কিছু ধর্মীয় সংগঠন এরপর প্রতিবাদে সোচ্চার হয়। 2013 সালে একটি মামলায় দিল্লি হাইকোর্টের এই রায়কে  খারিজ করে দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। সেইসঙ্গে জানায় এই আইন বাতিল করার দায়িত্ব সংসদের। 377  ধারায় ভারতের খুব কম মানুষই শাস্তি পেয়েছেন। তবে 2013 সালের এই রায়ে সমকামিদের আন্দোলনের কাছে ধাক্কা ছিল। সমকামিদের হেনস্তা করার প্রবণতা দেশে বেড়ে যায়। এরপরই সুপ্রিম কোর্টে নাজ ফাউন্ডশন সহ কয়েকটি এনজিও 2013 সালের রায়কে পুনর্বিবেচনার জন্য আর্জি জানায়। 5 বছর লড়ায়ের পর অধিকার পেলেন সমকামিরা।