প্রধানমন্ত্রীর গুরু বলে পরিচয় দিয়ে গ্রেফতার কত্থক শিল্পী পুলকিত মহারাজ

সাহানা মল্লিক চক্রবর্তী ■ নয়াদিল্লি

পুলকিত মহারাজ

 

সাহানা মল্লিক চক্রবর্তী ■ নয়াদিল্লি

29 সেপ্টেম্বর : প্রধানমন্ত্রীর নাম ভাঁড়িয়ে VVIP সুবিধা নেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার কত্থক সম্রাট পুলকিত মহারাজ। শুক্রবার দিল্লি সংলগ্ন সাহিবাবাদ থেকে রাষ্ট্রপতি পুরস্কার প্রাপ্ত নৃত্যশিল্পীকে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ।তাঁর বিরুদ্ধে জালিয়াতির মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।
অভিযোগ, তিনি বিভিন্ন মন্ত্রকের জাল লেটার হেড ব্যবহার করে একাধিক রাজ্যে VVIP সুবিধা নিতেন।
ক্রাইম ব্রাঞ্চের অ্যাডিশনাল সিপি রাজীব রঞ্জন জানান, চলতি বছরের আগস্ট মাসে উত্তরপ্রদেশের সীতাপুরের কালেক্টরের কাছ থেকে পুলকিত মহারাজের বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগ মেলে। কালেক্টর জানান, সাহিবাবাদের বাসিন্দা পুলকিত মহারাজ উত্তরপ্রদেশের সীতাপুরের কালেক্টরের কাছে নিজেকে শিল্প এবং সংস্কৃতি মন্ত্রকের ডাইরেক্টর বলে পরিচয় দিয়ে সার্কিট হাউস বুক করতে নির্দেশ দেন। সেইসঙ্গে তাঁর জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থাও করতে বলেন।
প্রসঙ্গত, চলতি বছরেরই 1 এপ্রিল তিনি সীতাপুর গিয়েছিলেন, সেখানে তিনি পুলিশ প্রশাসনের তরফে তাঁর জন্য VVIP প্রোটোকল মেনে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়।কিন্তু কালেক্টরের সন্দেহ হওয়ায় তিনি মন্ত্রককে বিষয়টি জানান। PMO-র তরফে ক্রাইম ব্রাঞ্চকে এই বিষয়ে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তদন্তে জানা যায়, সীতাপুরের কালেক্টরকে পাঠানো চিঠির লেটার হেডটি নকল।পুলকিত মহারাজের বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগ দায়ের করা হয়।এর পরেই শুক্রবার সাহিবাবাদের বাড়ি থেকে পুলকিত মহারাজকে গ্রেফতার করা হয়।
জানা গিয়েছে, তিনি বিভিন্ন জায়গায় নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর আধ্যাত্মিক গুরু বলে দিয়ে, কখনও জাল লেটার হেড ব্যবহার করে, কখনও বা নিজের হাই-প্রোফাইল কানেকশনের কথা বলে একাধিক রাজ্যে VVIP সুবিধা নিয়েছেন। তদন্তের জানা গিয়েছে, পুলকিত মহারাজের বোন পারুল নিজেকে তাঁর সচিব বলে পরিচয় দিয়ে একই সুবিধা ভোগ করতেন।পুলকিত মহারাজ দিলশাদ গার্ডেন এলাকায় আলিঙ্গন ওয়েলফেয়ার নামে একটি ডান্স অ্যাকাডেমি খুলে সেখানে নিজের একটি আধ্যাত্মিক কেন্দ্রও চালাতেন বলে তদন্তে জানা গিয়েছে।
আপাতত কত্থক গুরুকে পাঁচদিনের রিমান্ডে হেফাজতে নিয়েছে ক্রাইম ব্রাঞ্চ।কীভাবে তিনি নকল লেটার হেডগুলি জোগাড় করেছিলেন, বিভিন্ন মন্ত্রকের কোনও কর্মচারী এই কাণ্ডে জড়িত কিনা তা জানার চেষ্টা চলছে।পাশাপাশি, এই জালিয়াতিতে নৃত্যগুরুর বোনের ভূমিকাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।