কালীপুজোয় “ভূতের কেত্তন” এর সাক্ষী থাকল বেহালাবাসী

পল্লবী সান্যাল

প্রতি বছরই সাবেকি সাজে মা কালীর পুজো করে থাকেন বেহালার সরশুনা অঞ্চলের মার্লিন ত্রিনয়নীর আবাসিকরা। এবছর তাদের মন চেয়েছিল নতুন কিছু করতে। তাই এবারের কালীপুজোয় তাদের মূল ভাবনা ছিল “ভূতের কেত্তন”। প্রত্যেক আবাসিক দায়িত্ব নিয়ে পুজোর কাজে হাত লাগিয়েছিলেন। আবাসনটিকে নতুন করে সাজিয়ে তোলা থেকে থিমটাকে দাঁড় করান সবেতেই তাদের দক্ষতা প্রকাশ পেয়েছে। রং, তুলি, ক্যানভাসে ফুটে ওঠা “ভূতের কেত্তন” যেন ওই আবাসনেরই জীবন্ত দলিল। বিশেষ এই ভাবনার মধ্যে নিহিত ছিল একটি সামাজিক বার্তা। ব্যঙ্গ – বিদ্রুপের আড়ালে লুকিয়ে ছিল বাস্তব। এক অনবদ্য ভাবনাকে সহজ ভাবে প্রকাশ করলেন মার্লিন ত্রিনয়নীর আবাসিকরা।