ডার্বির আগে বেজায় চটেছেন ইস্টবেঙ্গল কোচ

এসবিবি, স্পোর্টস : মঙ্গলবার বোঝা গিয়েছিল, ইস্টবেঙ্গলের নিজেদের মাঠ পছন্দ করছেন না কোচ আলেসান্দ্রো মেনেন্দেজ। এটিকে-র জন্য যুবভারতীর প্র্যাক্টিস গ্রাউন্ড কিংবা সেন্ট্রাল পার্কার মাঠ পায়নি ইস্টবেঙ্গল। আইএসএল-এর কলকাতার দলটি আগে থেকেই মাঠ বুক করে রেখেছিল। ফলে স্বভাবতই নিজেদের মাঠেই অনুশীলন করতে হয়েছে লাল-হলুদ ফুটবলারদের। কিন্তু নিজেদের মাঠের দশা দেখে বেশ ক্ষুব্ধ ইস্টবেঙ্গলের স্প্যানিশ কোচ।

ডার্বির আগে আর হাল্কা অনুশীলন চলবে না। ইতিমধ্যেই অনুশীলন থেকে ফুটবলারদের দু’দিনের ছুটি কাটানো হয়ে গিয়েছে। রবিবাসরীয় ডার্বিকে মাথায় রেখে ফুটবলারদের নিয়ে জোরকদমে অনুশীলন করাতে মরিয়া আলেসান্দ্রো। কিন্তু মাঠ সমস্যায় এতটাই চটেছেন তিনি যে বুধবার অনুশীলনশেষে ড্রেসিংরুমেও যাননি তিনি। সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরার সামনে যদিও কিছু বলতে চাননি তিনি নিজে। তবে দোভাষীর মাধ্যমে বলে যান, “এই মাঠে অনুশীলন করানো একপ্রকার অসম্ভব। সল্টলেকের মাঠেই ব্যবস্থা করতে হবে।” তবে ইস্টবেঙ্গল মাঠ নিয়ে শুধু কোচই যে ক্ষুব্ধ তা নয়, দলের বিদেশি ফুটবলাররাও এই মাঠের প্রতি বিরক্তি প্রকাশ করেছেন। ফলে বুধবার মাত্র এক ঘণ্টার অনুশীলন করান আলেসান্দ্রো।

এদিকে ডার্বির আগে লাল-হলুদ ফুটবলারদের মধ্যে যেন সেই মেজাজটাই দেখা যাচ্ছে না। কোথাও যেন একটা সুর-তাল কেটে যাওয়ার মতো অবস্থা। হারের হ্যাটট্রিকের পরে গোকুলাম ম্যাচ জিতেছে ইস্টবেঙ্গল। কিন্তু তারপরেও ফুরফুরে মেজাজটা কিছুতেই যেন ফিরছে না টিম ইস্টবেঙ্গলে। আলেসান্দ্রোর ছেলেরা যে রীতিমতো চাপে রয়েছে, তা পরিষ্কার। ডার্বির আগে ফুটবলারদের উপর বেশ কিছু বিধি নিষেধও জারি করেছেন ইস্টবেঙ্গল কোচ। তারমধ্যে অন্যতম সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলায়।

এ ছাড়াও বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার ‘ক্লোজড ডোর’ অনুশীলন করাতে চান লাল-হলুদের স্প্যানিশ কোচ। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মোহনবাগান যাতে ইস্টবেঙ্গলের স্ট্র্যাটেজি না বুঝতে পারে, সে কারণেই এই সিদ্ধান্ত গার্সিয়ার।