লন্ডনের কর্পোরেট-কর্ত্রী প্রদেশ কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়ার দায়িত্বে

এসবিবি : প্রদেশ কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া সেলের শীর্ষ পদে লন্ডন থেকে উড়িয়ে আনা হল মিতা চক্রবর্তীকে।
লন্ডনের নামজাদা IT- শিল্পপতি মিতা গত 4 ডিসেম্বর প্রদেশ কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া সেলের দায়িত্ব নিয়েছেন। প্রদেশ কংগ্রেসের শাখা সংগঠন ‘প্রফেশনালস- কংগ্রেস’ থেকেই মিতা চক্রবর্তীর খবর পান সোমেন মিত্র। তখনই সিদ্ধান্ত নেন প্রদেশ কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া সেলের শীর্ষপদে এই মিতাকেই নিয়ে আসার। দিল্লি থেকে সবুজ সংকেত মেলার পরই এই পদে নিযুক্ত হন মিতা। ইতিমধ্যেই কাজে নেমে পড়েছেন মিতা। গত 21 ডিসেম্বর এআইসিসি’র মিডিয়া সেলের চেয়ারপার্সন দিব্যা স্পন্দনার সঙ্গে বৈঠক সেরে নেন মিতা । মিতা বলেছেন, “বরাবর কংগ্রেসের সঙ্গেই ছিলেন, তাই কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া সেল সামলানোর প্রস্তাব পেয়ে প্রত্যাখ্যান করার কোনও কারণই ছিল না”। স্বীকার করেছেন,
সরাসরি কোনও যোগ ছিল না রাজনীতির সঙ্গে। প্রথমে পড়াশোনা, তার পরে কর্মসূত্রে বিদেশে চলে যাওয়া, তারপর লন্ডনেই নিজের সংস্থা তৈরি করা। মিতার বাবা কংগ্রেসের আইনজীবী সংগঠনের নেতা ছিলেন এবং এআইসিসি সদস্য ছিলেন। কাজে নেমেই প্রদেশ কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া টিমকে দু’ভাগে ভেঙে দিয়েছেন মিতা। কনটেন্ট টিম এবং টেকনিক্যাল টিম। ফেসবুক-টুইটারে কী পোস্ট হবে, কখন হবে, পোস্ট বা টুইটের বয়ান কী হবে, কোন বিষয়কে বেশি করে তুলে ধরতে হবে, প্রতিপক্ষের কোন প্রশ্নের জবাব কতটা জোরদার ভঙ্গিতে দেওয়া হবে, সে সব দেখভাল করছে কনটেন্ট টিম। তথ্যপ্রযুক্তি সংক্রান্ত খুঁটিনাটি সামলাচ্ছে টেকনিক্যাল টিম। এছাড়াও রাজ্যকে 4টি জোনে ভাগ করে জোনাল কোঅর্ডিনেটর নিয়োগ করেছেন।

আরও পড়ুন – শুধু তিন জাতের প্রতিনিধিই কেন রাষ্ট্রপতির দেহরক্ষী হবেন, প্রশ্ন কোর্টের
প্রতিটি বিধানসভা কেন্দ্রে সোশ্যাল মিডিয়া টিমও গড়া হবে। মিতা দায়িত্ব নেওয়ার পর গত দু’সপ্তাহে প্রদেশ কংগ্রেসের ফেসবুক এবং টুইটার হ্যান্ডলের ফলোয়ারের সংখ্যা নাকি অনেকটাই বেড়েছে।