বাজাজের হঠকারিতায় মাঠেই প্রাণ যেত ফুটবলারের

এসবিবি, স্পোর্টস : সংবাদমাধ্যমে ফলাও করে বেরিয়েছিল, ফুটবলারের প্রাণ বাঁচিয়েছেন মিনার্ভা পাঞ্জাবের কর্ণধার রঞ্জিত বাজাজ। কিন্তু আদতে যে বিষয়টি উল্টো, তখন তা বোঝা যায়নি। ওঁর দায়িত্বজ্ঞানহীনতার জন্য উল্টে ওই ফুটবলারের প্রাণটাই চলে যেতে পারত।

আরও পড়ুন –তৃণমূল প্রতীকে মৌসম নূর, মালদায় শুরু ভোটের দেওয়াল লিখন

সম্প্রতি গোয়ায় এলিট লিগের ম্যাচ চলছিল। রিলায়েন্স ফাউন্ডেশন ইয়ুথ চ্যাম্পসের বিরুদ্ধে খেলতে নেমেছিল মিনার্ভা। প্রথমার্ধের শেষলগ্নে মিনার্ভার মাকান উঙ্কল ছোটের সঙ্গে ধাক্কা লাগে রিলায়েন্সের গোলরক্ষক মাকানের। চোট পেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন মাকান। ওঁর নি:শ্বাসও প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। চোট বেশ গুরুতর বুঝে ছোটাছুটি শুরু করে দেন দু’দলের ফুটবলারই। দু’দলের ফুটবলাররাই মাঠের পাশে মজুত অ্যাম্বুল্যান্সটি ডাকতে বলেন। ডাক্তার-ফিজিওরাও বলেন, মাকানকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন।

আরও পড়ুন –রাতভর শহরজুড়ে পরপর CBI হানা

হঠাৎই একগুঁয়েমি শুরু করে বাধা দেন মিনার্ভা কর্ণধার রঞ্জিত বাজাজ। তাঁর জেদ, মাকানকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই। মাঠে উপস্থিত ডাক্তার, ফিজিও, অ্যাম্বুল্যান্স স্টাফরা সকলেই বাজাজকে বোঝাতে থাকেন, মাকানকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া কতটা প্রয়োজন। কিন্তু মিনার্ভা কর্ণধার সেই অনুরোধে কর্ণপাত না করে উল্টে অ্যাম্বুল্যান্সের চালককে মারধর শুরু করেন। ততক্ষণে ওই গোলরক্ষকের শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হতে থাকে। শেষপর্যন্ত রঞ্জিত বাজাজ বেগতিক বুঝে নিজেই মাকানকে সিপিআর দেন। গোটা বিষয়টি সংবাদমাধ্যমের কানে না তুলে বাজাজের মাকানকে বাঁচিয়ে তোলার খবরটিই কেবল দেওয়া হয়। ফলে প্রাথমিক ভাবে সংবাদমাধ্যমের প্রশংসাই কুড়িয়েছিলেন রঞ্জিত বাজাজ।

আরও পড়ুন –কানহাইয়ার বক্তব্য শুনতে উন্মুখ বাম সমর্থকরা

তবে গোটা বিষয়টি ব্যাখ্যা করে ফেডারেশনকে চিঠি দিয়েছেন এএফসি এমার্জেন্সি মেডিসিন ফিজিশিয়ান ডাক্তার ফেন্টন ডিসুজা। চিঠিতে তিনি মিনার্ভা পাঞ্জাবের কড়া শাস্তির দাবি করে লিখেছেন, “অল্প বিদ্যা ভয়ঙ্কর।” রঞ্জিত বাজাজ চিকিৎসা জগতের কেউ না হয়েও যা করেছেন, তা গুরুতর অপরাধ। ওঁর হঠকারিতার জন্য প্রাণহানিও ঘটতে পারত ওই ফুটবলারের। ফেডারেশন সচিব কুশল দাস জানিয়েছেন, “বিষয়টি আমরা খুব সিরিয়াসলি দেখছি। গর্হিত কাজ করেছেন রঞ্জিত বাজাজ।”

আরও পড়ুন –মোদির সভা ছেড়ে ফিরলেন অপমানিত লকেট