চোট-বিতর্ক, ইউতার পাশেই খালিদ-সনি

এসবিবি, স্পোর্টস : ‘সংবাদ বিশ্ব বাংলা’ ইউতা কিনওয়াকিকে নিয়ে বাগান সংসারে অসন্তোষের খবরটি প্রকাশ করতেই আসরে নামলেন সনি-খালিদরা। চোট রয়েছে বলে বড় ম্যাচের আগে হঠাৎই সরে দাঁড়িয়েছিলেন সবুজ-মেরুন মিডফিল্ডার। পরে মেডিক্যাল রিপোর্টে জানা যায়, তাঁর কোনও চোট ছিল না।

আরও পড়ুন –আকর্ষণ কানহাইয়া, ব্যর্থতা প্রকট আলিমুদ্দিনের

সংবাদমাধ্যমে এই খবর প্রকাশ হতেই অস্বস্তিতে পড়েন মোহনবাগান কর্তারা। কিনওয়াকির পেশাদারিত্ব নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। বাড়ে অসন্তোষ। আই লিগ হাতছাড়া হওয়ার পরে এমনিতেই সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভ বাড়ছে। শনিবারও বেশ কয়েকটি ফ্যান ক্লাবের সদস্যরা ক্লাব তাঁবুতে একত্রিত হয়ে বিক্ষোভ দেখান। এখন আবার গোদের উপর বিষফোঁড়ার মতো ইউতার চোট নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে। বিষয়টি যে খারাপ দিকেই এগোচ্ছে তা ভালই বুঝেছেন মেরিনার্স কোচ-ফুটবলারকুল থেকে কর্তা-সমর্থকরা। ফলে এবার আসরে নামলেন মোহন জনতার ‘হার্টথ্রব’ সনি নর্ডি নিজেই।

আরও পড়ুন –নগরপালের পদ থেকে সরতে পারেন রাজীব?

জানা গিয়েছে, নিজের চোট-বিতর্ক নিয়ে কোচ-ফুটবলারদের সঙ্গে কথা বলেন ইউতা। আর তারপরেই সতীর্থের হয়ে দাঁড় হাতে দাঁড়ালেন বাগানের হাইতিয়ান ম্যাজিশিয়ান। সনি সাফ বলে দিলেন, “ইউতা পেশাদার ফুটবলার। ও নিজের দায়িত্ব ভালই জানে। ইউতা মানুষ হিসেবেও খুব ভাল। ওকে আমি বলেছি, চার্চিল ম্যাচের জন্য তৈরি হতে। মাঝমাঠের শক্তি বাড়াতে ইউতাকে প্রয়োজন আমাদের।” এদিকে চার্চিল ম্যাচের আগে যাতে বিতর্ক না বাড়ে সে দিকটা মাথায় রেখে ডার্বিতে ইউতার না খেলার ইস্যুটিকে আড়াল করে জাপানি মিডফিল্ডারকে বাঁচানোর চেষ্টা করে গেলেন কোচ খালিদ জামিলও।

বাগান কোচ বলে দিলেন, “বড় ম্যাচে ইউতা খেলতে চেয়েছিল। আমিই ওকে মাঠে নামাইনি।”

আরও পড়ুন –পি কে ব্যানার্জীর আত্মজীবনী উদ্বুদ্ধ করবে আগামী প্রজন্মকে