মানুষের হয়ে কাজ করার সুযোগ দেওয়ার জন্য মমতাকে ধন্যবাদ জানালেন নুসরত

এসবিবি : সেলুলয়েডের পর্দা থেকে এবার বাস্তবের রূঢ় মাটি, রিল লাইফ থেকে রিয়েল লাইফ, অভিনেত্রী থেকে নেত্রী – গত 24 ঘন্টায় তাঁকে কেন্দ্র করে এই শব্দগুলি ক্রমশ ঘুরপাক খাচ্ছে। তিনি টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরত জাহান। সিনেমার জগত থেকে এবার রাজনীতির জগতে আরও সক্রিয়ভাবে নেমে পড়লেন এই দুষ্টু-মিষ্টি অভিনেত্রী। এবার লোকসভা নির্বাচনে বসিরহাট কেন্দ্রে নুসরত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্নেহধন্যা ঘাসফুল শিবিরের প্রার্থী। প্রার্থী তালিকা ঘোষণার পর থেকেই প্রচারের আলোয় চলে এসেছেন তিনি।

আরও পড়ুন – বিজেপিতে নয় বলেও তৃণমূল প্রার্থীদের কটাক্ষ বৈশাখীর


বিগত কয়েকবছর ধরেই তৃণমূলের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে দেখা গিয়েছে নুসরতকে। তৃণমূলের 21 জুলাইয়ের মঞ্চ আলো করে থাকতেও দেখা গিয়েছে তাঁকে। জীবনে প্রথমবার লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী হওয়ার পর কতটা খুশি তিনি? নুসরতের সোজাসাপটা জবাব “এটা তো কোনও বার্থডে গিফট নয়, যে পেলাম আর খুশি হয়ে গেলাম। এটা অনেক বড় পাওনা হলেও দায়িত্বও বাড়িয়ে দিল।“ এরপরই অভিনেত্রী জানান, যদি সাংসদ হন, তাহলে পরিবারের প্রতি যে দায়িত্ব-কর্তব্য পালন করেন ঠিক সেভাবেই বসিরহাটের মানুষের পাশে থেকেই কাজ করে যাবেন। তিনিও আশা করেন লোকসভা নির্বাচনে বসিরহাটের মানুষও তাঁর পাশে থাকবে। তাঁকে আশীর্বাদ করবে।

আরও পড়ুন –কালীঘাটে প্রার্থীদের সঙ্গে বৈঠকে মমতা: LIVE


অভিনয় আর রাজনীতি, দুটোকে কীভাবে সামলাবেন? উত্তরে নুসরত বলেন, “ মানসিকভাবে আমি তৈরি। দুটোই করতে হবে। ছবিও মানুষের জন্য তৈরি হয়। আর রাজনীতিও করা হয় মানুষের জন্য। তাই আমি দুটোর মধ্যে ভারসাম্য রেখে চলবো।
এতদিন ছবির প্রচার করেছেন নুসরত, এবার তাঁকে নামতে হবে রাজনীতির প্রচারেও। বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন তিনি। নুসরত বলেন, “ দুটোই মানুষের জন্য। মানুষের স্বপ্নপূরণের জন্য আমি কাজ করবো। আর সেটাই মানুষের সামনে তুলে ধরবো। রাজ্যে পরিবর্তনের সময় থেকেই আমি দিদির সঙ্গে আছি। তিনি কীভাবে লড়াই করে মানুষের অধিকার ফিরিয়েছেন তা আমি সামনে থেকে দেখেছি। আমি দিদিকে সম্মান করি। দিদিও বিশ্বাস করে আমাকে প্রার্থী করেছেন। চেষ্টা করবো তাঁর সম্মান রাখার।”

আরও পড়ুন –“রাজনীতির লোকেদের ইগো থাকতে নেই, আমরা রোবট!” কীসের ইঙ্গিত দিলেন অর্জুন?