19 দিনে পড়লো রাজ্যের হবু শিক্ষকদের অনশন, ঘুরলো না ভাগ্যের চাকা

এসবিবি : লোকসভা নির্বাচনের বাদ্যি বেজে গিয়েছে। তারই মধ্যে দেখতে দেখতে 19 দিন অতিক্রান্ত হয়ে গেল রাজ্যের এসএসসি চাকরি প্রার্থী হবু শিক্ষকদের অনশন। কিন্তু এখনও তাঁদের দাবির কোনও সুরাহা হলো না। রাজ্যের বিভিন্ন জেলার প্রায় 400 জন এসএসসি চাকরি প্রার্থী মেয়ো রোডে কলকাতা প্রেস ক্লাবের সামনে এই অনশনে অংশ নিয়েছেন। অনশন করতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন প্রায় 55 জন চাকরি প্রার্থী। গত রাতে কলকাতায় বিশাল ঝড়বৃষ্টি হয়েছে। সেই দুর্যোগের মধ্যেও অনশন চালিয়ে গিয়েছেন এঁরা। ঝড়ে প্রায় মরতে বসেছিলো  হবু শিক্ষকরা। ভাগ্যক্রমে বেঁচেছে। এঁরা প্রত্যেকেই নবম-দশম, একাদশ-দ্বাদশ ও উচ্চ প্রাথমিকের (পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণী) উচ্চ প্রাথমিকের জন্য এসএসসি (এসএলএসটি) উত্তীর্ণ হয়েছেন, ইন্টারভিউ পাশ করে প্যানেলে নাম নথি ভুক্ত হয়েছে তাঁদের। কিন্তু এখনও নিয়োগের কোনও খবর নেই। যার প্রতিবাদেই চলছে এই অনশন।

আরও পড়ুন –কুরুচিকর মন্তব্যের উত্তর দিলেন বামপ্রার্থী, সোশ্যাল মিডিয়া উত্তাল

উল্লেখ্য, 2015 সালে রাজ্যের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্কুলগুলিতে শিক্ষক নিয়োগের নোটিশ জারি করেছিল এসএসসি কর্তৃপক্ষ। 100 নম্বরের এসএলএসটি লিখিত পরীক্ষা হয়েছিল 2016 সালে। আর 2018 সালে বেড়িয়েছিল ফলাফল। উত্তীর্ণ প্রার্থীদের ইন্টারভিউও নিয়েছিল এসএসসি কর্তৃপক্ষ। সেখান থেকে শূন্য পদের জন্য প্যানেল তৈরি হয়েছিল। কিন্তু তার পর থেকে আর কোনও খবর নেই। শিক্ষক নিয়োগ কার্যত বিশ বাঁও জলে। তারপর গঙ্গা দিয়ে বয়ে গিয়েছে অনেক জল। অবশেষে, অনশনে বসতে বাধ্য হয় হবু শিক্ষকরা।

আরও পড়ুন –প্রথম তিন দফায় কংগ্রেসের সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকা : রায়গঞ্জে দীপা, মৌসমের বিরুদ্ধে ইশা

তাঁদের দাবি প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে উত্তর 24 পরগণার এসএসসি উত্তীর্ণ সমীর রায় বলেন, “আমাদের নিয়ে ছেলে খেলা করছে সরকার। আমরা প্রত্যেকেই পরীক্ষায় পাশ করে ইন্টারভিউ দিয়ে প্যানেল ভুক্ত হয়েছি। কিন্তু চাকরি দেওয়ার নাম করছে না সরকার। এমনকি, 100 নম্বরের লিখিত পরীক্ষায় আমরা কত নম্বর পেলাম, সেটাও গোপন করা হচ্ছে। এখানে নিয়োগে স্বচ্ছতা দেখাচ্ছে না এসএসসি কর্তৃপক্ষ। শুধু তাই নয়, রাজ্যের স্কুলগুলিতে কত শূন্য পদ আছে সে ব্যাপারেও সরকারের পক্ষ থেকে সঠিক কোনও তথ্য দেওয়া হচ্ছে না। তাই গত 19 দিন ধরে আমরা নিজেদের অধিকার নিয়ে অনশনে বসেছি।”

আরও পড়ুন –এ দেশে রেজিস্টার্ড রাজনৈতিক দলের সংখ্যা জানলে কপালে উঠবে চোখ

কিছুদিন আগে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এসএসসি উত্তীর্ণদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে তিনি সহানুভূতির সঙ্গে পুরো বিষয়টি বিবেচনা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে এক চাকরি প্রার্থী বলেন, “ পার্থবাবু এসেছিলেন। কিন্তু তিনি আমাদের সঠিক দিশা দেখাতে পারেননি। সবচেয়ে বড় ব্যাপার তাঁর একটি প্রশ্ন আমাদের সকলকে অবাক করেছে। পার্থবাবু আমাদের জিজ্ঞাসা করেন, আমরা বিএড পাশ কিনা! তিনি কী জানেন না বিএড পাশ ছাড়া পরীক্ষায় বসা যায় না?”

আরও পড়ুন –ব্যুমেরাং হয়ে ‘ট্রেলার’ ফিরছে, খগেন মুর্মুর বিরুদ্ধে বিজেপি’র পোস্টার

বিরোধী দলগুলির পক্ষ থেকেও অনশনরত চাকরি প্রার্থীদের সঙ্গে দেখা করেছেন রাজনৈতিক নেতারা। বিজেপির পক্ষ থেকে কখনও দিলীপ ঘোষ আবার বামেদের পক্ষ থেকে কখনও মহম্মদ সেলিম, বিকাশ ভট্টাচার্য, সুজন চক্রবর্তীরা দেখা করেছেন। সহানুভূতি দেখিয়েছেন। কিন্তু রাজ্যের হবু শিক্ষকদের ভাগ্য বদল হয়নি।

আরও পড়ুন –লোকসভার টিকিট না পেয়ে হাতের শিরা কাটলেন এই জনপ্রিয় বিধায়ক! অতঃপর

কী বলছেন অনশনরত হবু শিক্ষকরা, দেখুন ভিডিও