নীরব মোদির গ্রেফতারকে “গট আপ” বলে কটাক্ষ মমতার

এসবিবি: বুধবার ঋণখেলাপি হীরে ব্যবসায়ী নীরব মোদিকে গ্রেফতার করে লন্ডন পুলিশ। যেটা লোকসভা ভোটের মুখে অনেকেই নরেন্দ্র মোদি সরকারের কূটনৈতিক জয় বলেই মনে করছেন অনেকে। কিন্তু মোদি কিংবা তাঁর দল যাতে এই ইস্যুতে নির্বাচনের আগে ফায়দা তুলতে না পারে, তার জন্য ময়দানে নেমে পড়েছে বিরোধীরা।

নীরব মোদীর গ্রেফতারি প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে এদিন বিষয়টিকে একটা ‘গট আপ কেস’ বলে আখ্যা দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন- তিনি কি এ বঙ্গে যোগী আদিত্যনাথের কাউন্টার-পার্ট হতে পারেন?

পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্কের প্রায় 14 হাজার কোটি ঋণখেলাপি করে ফেরার হয়ে যান হীরে ব্যবসায়ী নীরব মোদি। নীরব দেশ ছাড়ার পর চাপে পড়ে গিয়েছিল মোদী সরকার। অভিযোগ ওঠে নীরব মোদীকে ফেরত পেতে যথেষ্ট তত্পর নয় ভারত। লন্ডনের ওয়েস্টমিনস্টার আদালত নীরব মোদীর বিরুদ্ধে দায়ের অভিযোগের স্বপক্ষে ভারত সরকারকে নথি পেশ করতে বললেও সেই নথি জমা পড়েনি। এতে অস্বস্তি বাড়ে নরেন্দ্র মোদির। অনেকে এই দুর্নীতির জন্য মোদি সরকারের দিকে সরাসরি অভিযোগের আঙুল তোলেন। অবশেষে 17 মাস পর গ্রেফতার হয় নীরব মোদি।

আর এই খবর সামনে আসতেই যাতে নরেন্দ্র মোদি কিংবা তাঁর দল নির্বাচনে ফায়দা লুটতে না পারে, সে ব্যাপারে সচেষ্ট বিরোধীরা। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাফ বক্তব্য, “নীরব মোদি একটা চাল। তুমি রবে নীরবে। গট আপ কেস। আসলি যো ছুপা রুস্তম হ্যায় নিকাল গায়া। নির্বাচন এসেছে তাই আমরা নীরব মোদী স্ট্রাইক দেখলাম। আরও স্ট্রাইক দেখব। নির্বাচনের জন্য এইগুলো রাখা থাকে সিনেমার মতো। এমন স্ট্রাইক করবেন না যাতে দেশ পিছিয়ে যায়। এটা সরকারের কোন ক্রেডিবিলিটি নয়। এক্সপায়ারি ডেট ওভার হয়ে গেছে বিজেপি সরকারের।”

আরও পড়ুন- সমঝোতা থেকে কার্যত সরলো বামফ্রন্ট, বামপ্রার্থী মালদহ উত্তর ও জঙ্গিপুরে

শুধু মমতা নয়, কংগ্রেস-সহ অন্য বিরোধীরাও নীরব মোদির এই গ্রেফতারিকে যাতে নির্বাচনে ফায়দা তুলতে না পারে বিজেপি, সে ব্যাপারে কৌশল চাল নিয়েছে।