পয়লা বৈশাখে বারপুজোর সেকাল-একাল: ঐতিহ্য থাকলেও হারিয়েছে আবেগ-জৌলুস

সোমনাথ বিশ্বাস

পয়লা বৈশাখ মানে ষোল আনা বাঙালিয়ানা৷ ভোরে কোকিলের ডাক৷ ঘরে ঘরে রবীন্দ্র সংগীত৷ জমিয়ে আড্ডা৷ নতুন পাঞ্জাবি কিংবা তাঁতের শাড়ি৷ দুপুরের মেনুতে মুড়ি ঘন্ট চা-ই চাই৷ সঙ্গে ফুটবল৷ বাঙালির সঙ্গে যার নাড়ির টান৷

মাঠে নেমে হোক কিংবা চার দেওয়ালের গণ্ডিতে, পয়লা বৈশাখে ফুটবল বাঙালির সঙ্গে ছিল, আছে, থাকবে৷ ভ্রমণপিপাসু, খাদ্যরসিকের মতোই ফুটবল পাগলামি বাঙালির চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য৷ ফুটবল বঙ্গ জীবনের অঙ্গ৷ বাঙালির রোজনামচা৷

আরও পড়ুন –উড়তে গিয়ে রানওয়েতে ভেঙে পড়লো বিমান, তারপর কী হল জানেন?

সময়ের হাত ধরে বয়ে গিয়েছে শতাব্দী৷ দেশ-কাল-সময়-রাজনীতি দেখেছে অনেক পরিবর্তন৷ বদলে গিয়েছে রাষ্ট্রের সীমানা, সামাজিক জীবন৷ শুধু বদয়ালনি বাঙালির ফুটবল প্রেম৷ তাই আজও সবুজ গালিচার উপর বাইশ জোড়া পায়ের একটি বলকে নিয়ে সৃষ্ট নানা নান্দনিক ভঙ্গিমা বাঙালি জীবনে হিল্লোল জাগায়৷ তা সে ওল্ড ট্র্যাফোর্ড হোক, সেলটিক পার্ক, ন্যু ক্যাম্প কিংবা ঘরের ধারের যুবভারতী৷ বাঙালির ফুটবল প্রেম বিশ্বজনীন৷ ফুটবল বাঙালির প্যাশন৷ তাই বাঙালির ময়দানি সংস্কৃতির বাইরেও জায়গা করে নিয়েছে ‘বত্রিশ প্যানেল’৷ বাঙালির গল্প, সাহিত্য, ছড়া, নাটকেও জায়গা করে নিয়েছে ফুটবল৷ বাদ পড়েনি সেলুলয়েড থেকেও৷ এগুলোই বাঙালির ফুটবল প্রেম জানান দেওয়ার জন্য যথেষ্ট৷ নববর্ষের প্রথমদিনটি এলেই যা আরও বেশি করে ভাবায়৷

আরও পড়ুন –ভাতারে গুলিবিদ্ধ বিজেপি নেতা, গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নাকি রাজনৈতিক শত্রুতা?

বঙ্গ জীবনের এই ফুটবল দর্শন থেকেই একদিন জন্ম হয়েছিল বারপুজোর৷ যেখানে চারদিনের দুর্গাপুজোর থেকে একবেলার বারপুজোর জৌলুস কোনও অংশে কম ছিল না৷ শারদীয়া উৎসবের মতোই বারপুজো কেন্দ্রিক ফুটবল উৎসবও ছিল বাঙালির এক প্রধান ফেস্টিভ্যাল৷ বারপুজোকে ঘিরে ময়দানের ক্লাবগুলিতে ছিল সাজো সাজো রব৷ বিশেষ করে মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গেলর বর্ণময় বারপুজো বাঙালির ফুটবল দর্শনকে আলাদা করে চিহ্নিত করেছিল৷

আরও পড়ুন –ভেস্তে গেল এলাকা দখলের পরিকল্পনা, নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিকেশ 27 জঙ্গি

অন্যন্য পুজোর মতোই বারপুজোও সংস্কারাচ্ছ্ন্ন৷ বিশ্বাসও বলা চলে৷ সাবেকিয়ানা ছেড়ে বাঙালি যতই আধুনিক হোক, পয়লা বৈশাখের কিছু মিথ এখনও বঙ্গ জীবনকে আষ্টেপিষ্টে ধরে রেখেছে৷ আপামর বাঙালির বিশ্বাস, নববর্ষের প্রথমদিনটি যদি ভাল কাটে তাহলে, সারা বছর ভাল কাটবে৷ সম্ভবত এই বিশ্বাস থেকেই একদিন জন্ম হয়েছিল বারপুজোর৷ নব্বইয়ের দশক পর্যন্ত পয়লা বৈশাখের পর শুরু হতো ময়দানের ফুটবল মরশুম৷ তার আগে হয়ে যেত দলবদলের পর্ব৷ তাই বাঙলা বছরের প্রথমদিনটিতে সকলকে সাক্ষী রেখে পুজা অর্চনার মধ্য দিয়ে ধুমধাম করে হতো বারপুজো৷ কালীঘাট থেকে পুরোহিত এসে রীতি মেনে করতেন সেই বারপুজো৷ বারের চারপাশে থাকতো কিছু অতন্দ্র প্রহরী৷ যারা পুজো শেষ না হাওয়া পর্যন্ত বারটিকে পাহারা দিতেন৷ পাছে কেউ বার ডিঙিয়ে না যায়! আসলে বার ডিঙোলে নাকি ক্লাবের পক্ষে তা অমঙ্গল! গোটা গ্যালারি ভরে যেত বারপুজো দেখতে৷

আজও বারপুজো হয়৷ কিন্তু ফুটবলের কক্ষপথে বাঙালির সেই আবেগ এখন অনেকটাই ম্লান৷ আগের মতো ঐতিহ্য আছে, কিন্তু নেই সেই জৌলুস, নেই আবেগ। কর্পোরেট ছোঁয়ায় ষোলো আনা বাঙালিয়ানা থেকে বারপুজো এখন অনেকটাই ‘বাংলিশ’৷ তবুও ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সেকালের সেবেকিয়ানা কোথাও যেন বলে যায়, ‘জয় হো বাঙালি, ‘জয় হো পয়লা বৈশাখা’, ‘জয় হো ফুটবল’, ‘জয় হো বারপুজো…৷’

আরও পড়ুন –বারাণসীতে মোদির বিরুদ্ধে কংগ্রেস প্রার্থী নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে