নোট দিয়ে ভোট কেনা অত সহজ নয়

এসবিবি: লোকসভা নির্বাচনে প্রথম দফায় ভোট হয়ে গেলেও দ্বিতীয় দফার ভোট আগামিকাল অর্থাৎ 18  এপ্রিল। এদিন 97 টি আসনের 1635 প্রার্থীর ভবিষ্যৎ নির্ণয় হয়ে যাবে কিন্তু তার আগেই বাধ সাধল নির্বাচন কমিশন। উল্লেখ্য যে প্রচুর পরিমাণে নগদ উদ্ধার এর পরিপ্রেক্ষিতে তামিলনাড়ুর ভেলোর লোকসভা কেন্দ্রে ভোট আপাতত বাতিল করে দিল নির্বাচন কমিশন। তবে এটা অবশ্য নতুন নয়। 2017 সালের চেন্নাইয়ের আর কে নগর বিধানসভা কেন্দ্রে এমনই একটি অভিযোগ ওঠে যার পরিপ্রেক্ষিতে সেখানেও ভোট বাতিল করেছিল নির্বাচন কমিশন। বারংবার সতর্ক করা শর্তেও ভোটারদের প্রভাবিত করতে রীতিমত টাকা বিলোচ্ছে প্রবীণ ডিএমকে নেতা দুরাইমুরুগান এবং তার ছেলে কাঁথির আনন্দ।

আরও পড়ুন –হলফনামায় সম্পত্তি “NIL”! ভোটের লড়াইয়ে কোটিপতিদের মাঝে ব্যাতিক্রমী SUCI প্রার্থী

গত 30 শে মার্চ অভিযোগের ভিত্তিতে মুর গানের বাড়িতে হানা দেয় আয়কর দফতর। সেখানে হিসাব বহির্ভূত 10 লক্ষ 50 হাজার টাকা এবং সিমেন্টের গুদাম থেকে 11 কোটি 53 লক্ষ টাকা উদ্ধার হয়েছে বলে দাবি আয়কর অধিকারীদের। যার মধ্যে 91 শতাংশ টাকা হল 200 টাকার নোট সম্ভবত মনে করা হচ্ছে ভোটারদের মধ্যে বিতরণ করার জন্যই এই টাকা ওই জেলারই একটি স্থানীয় ব্যাংক থেকে আনা হয়েছে। বাকি টাকায় 2000 এবং 500 এর নোট শামিল রয়েছে। এরপর আয়কর আধিকারিকদের রিপোর্টের ভিত্তিতে ভেলোরের ডিএমকে প্রার্থী কাঁথির আনান্দ এবং তার সহযোগী দুই কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে স্থানীয় পুলিশ, এবং তারপরই রাষ্ট্রপতির কাছে ভেলোরে ভোট বাতিলের সুপারিশ করে কমিশন। আর সেই আর্জি মঞ্জুর করলেন রাষ্ট্রপতি। উল্লেখ্য যে এখনও পর্যন্ত কমিশন 78.12 কোটি হিসাব বহির্ভূত টাকা আটক করেছে।

আরও পড়ুন –প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর নামে কুরুচিকর মন্তব্য করে বিতর্কে উমা ভারতী, কমিশনে কংগ্রেস