ফিরদৌসকে কালো তালিকাভুক্ত করে এক্ষুণি ভারত ছাড়ার নির্দেশ, বাতিল ভিসাও

এসবিবি: বিদেশি নাগরিক হয়ে ভারতের নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সরাসরি নাক গলানোর অভিযোগে বাংলাদেশি অভিনেতা ফিরদৌসকে কালো তালিকাভুক্ত করল ভারত সরকার। ফলে তিনি আর ভারতে ঢুকতে পারবেন না। তাঁর বিজনেস ভিসাও বাতিল করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক অবিলম্বে এই বাংলাদেশি অভিনেতাকে ভারত ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে। গোটা ঘটনায় ফিরদৌসকে নিয়ে অস্বস্তিতে বাংলাদেশ হাই কমিশনও।

অভূতপূর্ব এই কাণ্ডটি ঘটেছে তৃণমূল কংগ্রেসের সৌজন্যে। রায়গঞ্জের সংখ্যালঘু প্রধান এলাকায় ভোট টানতে তৃণমূল প্রার্থীর হয়ে প্রচার করেন বাংলাদেশের নাগরিক অভিনেতা ফিরদৌস। একজন অন্য দেশের নাগরিক কীভাবে একটি সার্বভৌম দেশের নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিয়ে একটি নির্দিষ্ট রাজনৈতিক দলকে ভোট দেওয়ার আবেদন করতে পারে সেই প্রশ্ন তুলে সরব হয় বিজেপি। ফিরদৌসের গ্রেপ্তার চেয়ে দিল্লির নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রচার সংক্রান্ত তথ্য পাঠানো হয়। এরপর কড়া অবস্থা নেয় নির্বাচন কমিশন। কমিশনের পক্ষ থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক ও ভিসা নথিভুক্তিকরণ বিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক বাংলাদেশি অভিনেতা ফিরদৌসকে ব্ল্যাকলিস্টেড করে ভারতে ঢোকা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। বিদেশ দপ্তরের পক্ষ থেকে তাঁর ভিসা বাতিল করে অবিলম্বে এদেশ ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে যাঁর হয়ে প্রচারে নেমে মুখ পুড়ল বাংলাদেশি অভিনেতার, রায়গঞ্জের সেই তৃণমূল প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়াল এখন মুখ বাঁচাতে বলছেন, উনি কী করেছেন জানি না। আমি ওখানে ছিলাম না। আমি ওকে আমার হয়ে প্রচার করতেও বলিনি।