এবার ফুটবল বাঁচাতে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মোদির দ্বারস্থ ঘটি-বাঙাল

এসবিবি: ভারতীয় তথা বঙ্গ ফুটবলে যা আগে কখনো ঘটেনি এবার তাই ঘটতে গেল। বাঙালি আবেগের অন্য দুটি নাম ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান। সেই চিরন্তন ঘটি-বাঙালের লড়াই। ময়দানের এই দুটি ক্লাবকে ঘিরে বাঙালির আবেগ দ্বিধা বিভক্ত। ইতিহাস সাক্ষী এই দুই দলের খেলাকে কেন্দ্র করে সমর্থকদের কত লড়াই,রেষারেষি,রক্তপাত এমকি মৃত্যু পর্যন্ত ঘটেছে। বাঙাল-ঘটি একেবারে ফাটাফাটি। তবে চিংড়ি-ইলিশের সম্পর্ক যতই সাপে-নেউলে থাকুক না কেন দুই দলের মধ্যে যে ফুটবল প্রীতি নিখাদ, তাতে যে একটুও জল মেশানো নেই তা আরেকবার প্রমান হল। আর এই ফুটবল-প্রেম থেকেই ঘটি-বাঙালের মধ্যে চলল সমঝোতা এক্সপ্রেস! ঘটনাটি হলো আই লিগ বাঁচাতে এবার ইস্টবেঙ্গল মোহনবাগান হাতে হাত মিলিয়ে আই লিগের অন্যান্য দলের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি দিল। সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন আইএসএলকে দেশের এক নম্বর লিগ করার উদ্যোগকে রুখতে আইলিগের মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গল, চার্চিল ব্রাদার্স, গোকুলম এফসি, মিনার্ভা এবং আইজলের কর্তারা একজোট হয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ইমেল করেন।

আরও পড়ুন-কাঠগড়ায় তৃণমূল : ফের বোমাবাজিতে উত্তপ্ত আনন্দপুর

তবে আপাতত ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন আইএসএল কে দেশের এক নম্বর লিগ করা থেকে সরলেও অদূর ভবিষ্যতে যে এটি দেশের প্রধান লিগ হতে চলেছে তা স্পষ্ট করে দিয়েছে ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন সভাপতি প্রফুল্ল প্যাটেল। বর্তমান পরিস্থিতি যা দাঁড়াল তাতে আগামী দু-তিন বছর আইএসএল ও আইলিগ এক সঙ্গেই হবে বলে জানান প্রফুল্ল প্যাটেল। তবে আই লিগের ক্লাব গুলি এই সাময়িক জয়ে বসে না থেকে অদূর ভবিষ্যতে আরো বড় কোনো উদ্যোগ নিয়ে আইলিগকে বাঁচাতে চাইছেন। তাই তাঁরা একজোটে প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছেন।

আরও পড়ুন-এগারো বছর আগের জয়ের ‘রিপিট টেলিকাস্ট’ করতে চায় কোহলি ব্রিগেড