ইডি দফতর থেকে বেরিয়ে কী বললেন প্রসেনজিৎ ?

এসবিবি : “আমি ভারতের একজন দায়িত্বশীল নাগরিক। কিছু ডকুমেন্টস জমা দেওয়ার ছিল । আমি ইডিকে সেগুলি দিয়েছি। ভবিষ্যতে যদি কোনও সহযোগিতার প্রয়োজন হয় আমি তা করব। ” শুক্রবার ইডির দফতর থেকে বেরনোর পর সাংবাদিকদের এমনটাই জানালেন অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। এদিন তাঁকে প্রায় 6 ঘণ্টা জেরা করে ইডি।

আরও পড়ুন-বৃষ্টির আশা নেই, বাড়বে অস্বস্তি

প্রসঙ্গত, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের পর এবার ইডির দফতরে হাজিরা দিলেন অভিনেতা। শুক্রবার বেলা 11টা নাগাদ সিজিও কমপ্লেক্সে পৌঁছান প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। তবে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের আধিকারিকদের সঙ্গে দেখা করার আগে কিছু বলেননি অভিনেতা। হাত নাড়তে নাড়তে কমপ্লেক্সের ভিতর ঢুকে যান তিনি। রোজভ্যালি সংস্থার সঙ্গে তাঁর আর্থিক লেনদেন ও চুক্তি নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে সূত্রের দিনকয়েক আগে অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে সমন পাঠিয়েছিল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। 19 জুলাই বেলা 12টার মধ্যে সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরা দিতে বলা হয়েছিল তাঁকে। রোজভ্যালির বিভিন্ন অনুষ্ঠানে একাধিকবার বিশেষ অতিথির আসনে দেখা দিয়েছে প্রসেনজিৎকে। পাশাপাশি, রোজভ্যালির কর্ণধার গৌতম কুণ্ডুর সঙ্গে জাতীয় পুরস্কার পাওয়া এই অভিনেতার ঘনিষ্ঠতা ছিল কিনা, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এমনকী, ওই সংস্থার সঙ্গে কোনওরকম আর্থিক লেনদেনের সম্পর্ক ছিল কিনা, কেনই বা তিনি ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন, সেই সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে তলব করা হয়েছে বলে খবর।

আরও পড়ুন-রোজভ্যালি কাণ্ডে ED দফতরে জেরা চলছে অভিনেতা প্রসেনজিতের

বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থার আর্থিক লেনদেনের তদন্ত করতে গিয়ে রোজভ্যালির সঙ্গে একাধিক টলিউড সেলেব্রিটির যোগাযোগের কথা জানতে পারে ইডি। সেই প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই বৃহস্পতিবার তলব করা হয় ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে। অভিযোগ, রোজভ্যালির টাকায় বিদেশ ভ্রমণ করেছেন অভিনেত্রী। এছাড়া অভিনেত্রীর সঙ্গে 7 কোটি টাকা লেনদেনের খবরও রয়েছে ইডির কাছে।

আরও পড়ুন-নয়াদিল্লিতে গ্রেফতার চিটফান্ড কাণ্ডে অন্যতম মূল অভিযুক্ত মহম্মদ মনসুর খান