নিউজিল্যান্ডের সেরার খেতাব পেতে চলেছেন বেন স্টোকস

এসবিবি: বিশ্বকাপের নায়ক তিনিই। একা বুক চিতিয়ে লড়াই করে দেশকে বিশ্বকাপ এনে দিয়েছেন। ফাইনালে তাঁর ব্যাটই নিউজিল্যান্ডের প্রথমবার সোনার ট্রফি হাতে তোলার স্বপ্নভঙ্গ করে দেয়। উইলিয়ামসনদের হারানোর সুবাদে এবার নিউজিল্যান্ড সরকারের বিরল সম্মান ‘নিউজিল্যান্ডার অফ দ্য ইয়ার’-এর জন্য মনোনীত হলেন বিশ্বকাপ ফাইনালের ‘ম্যান অফ দ্য ম্যাচ’ অলরাউন্ডার বেন স্টোকস। শুনে অবাক লাগছে তো! যাদেরকে হারাল তারাই বা কেন সম্মানিত করতে চাইছে?

বিশ্বকাপে দুরন্ত পারফরম্যান্স করেছেন স্টোকস। ব্যাটে-বলে অনবদ্য ছন্দে ছিলেন তিনি। ব্যাট করে 465 রান এবং হাত ঘুরিয়ে সাতটি উইকেট পেয়েছেন। ফাইনালে তাঁর ব্যাট থেকে এসেছে 84 রান। তাঁর ব্যাটেই ভর করে বিশ্বকাপের স্বাদ পেয়েছে ইংরেজরা। কিন্তু আদতে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে গভীর সম্পর্ক রয়েছে স্টোকসের। 28 বছর বয়সী বেন স্টোকসের জন্ম নিউজিল্যান্ডেই। তাঁর বাবা-মা সেখানেই থাকেন। 1991 সালের 4 জুন নিউজিল্যান্ডে জন্ম তাঁর। জন্মের পরও বেশ কিছু বছর ক্রাইস্টচার্চেই ছিলেন তিনি। 12 বছর বয়সে বাবা-মা’র সঙ্গে ইংল্যান্ডে চলে আসেন।

এই পুরস্কারের মূখ্য বিচারক ক্যামেরন বেনেট এবং এখনও নিউজিল্যান্ডবাসীদের কেউ কেউ বেনকে নিজেদেরই আপনজন ভাবেন। তাই হয়তো তিনি মনোনীত হয়েছেন। উল্লেখ্য, বিশ্বকাপের ‘প্লেয়ার অফ দ্য টুর্নামেন্ট’, কিউয়ি অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনও মনোনীত হয়েছেন এই সম্মানের জন্য।