নোবেলকে সামনে পেলে চাবকাতাম , বিস্ফোরক ইমন

জনপ্রিয় রিয়েলেটি শো সারেগামাপার দ্বিতীয় রানার আপ হয়ে তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন বাংলাদেশের তরুণ সঙ্গীতশিল্পী নোবেল। তবে এবার জনপ্রিয়তার বদলে তার সমালচোনায় মুখর হয়েছে সকলে।  বছরখানেক আগে দেওয়া নোবেলের এক সাক্ষাৎকারই এর জন্য দায়ী। ওই সাক্ষাৎকারে নোবেল বলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত আমার সোনার বাংলার পরিবর্তে প্রিন্স মাহমুদের লেখা জেমসের গাওয়া বাংলাদেশ গানটিকে বেশি পছ্ন্দের ।  বাংলাদেশীদের আবেগ আরো বেশি করে ধরা পড়ে এই গানটিতে.” নোবেলের এই মন্তব্যের পরে উঠেছে সমালোচনার ঝড় গর্জে উঠেছেন শিল্পীরা । জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সঙ্গীত শিল্পী ইমন চক্রবর্তী এক ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, “সাক্ষাৎকারটি দেখার পর নোবেলকে চাবকাতে ইচ্ছা করছে।”  তিনি সাক্ষাৎকারের ওই ভিডিও পোস্ট করে ক্যাপশনে লেখেন, “সরি টু সে একে সামনে পেলে চাবকাতাম.”

আরও পড়ুন-ভাটপাড়ায় এতো বোমা-গুলি কেন? সায়ন্তন নিদান, “দিদিকে বলো”!

উল্লেখ্য ,একটি ইউটিউব চ্যানেলে দেওয়া ওই সাক্ষাৎকারের প্রকাশিত মূল অংশে জাতীয় সঙ্গীতের অংশটুকু ছিল না। তবে সম্প্রতি কেটে বাদ দেওয়া জাতীয় সঙ্গীত বিষয়ক সাক্ষাৎকারের অংশটি হুট করেই ভাইরাল হয়ে যায়। দেশ জুড়ে ওঠে সমালোচনার ঝড়। যা ছড়িয়ে গেছে ওপার বাংলা পর্যন্ত। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের রচনা করা বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত “আমার সোনার বাংলা” নিয়ে নোবেলের এমন মন্তব্য মানতে পারছে না দুই বাংলা। তাছাড়া এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো বিবৃতি দেননি নোবেল।
সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ভিঞ্চি দা ছবিতেও বড়সড় ব্রেক পেয়েছেন নোবেল। ওপার বাংলার সঙ্গে সঙ্গে, তার গানে মুগ্ধ হয়েছেন এপার বাংলার অসংখ্য মানুষও। সেই নোবেলই এবার ফাউল করে বসলেন একটি সাক্ষাৎকারে। সারেগামার মঞ্চে বহুবারই প্রিন্স মাহমুদের সুর ও কথায় জেমসের গাওয়া গান করতে দেখা গিয়েছে নোবেলকে। জেমসের কণ্ঠে গাওয়া বাংলাদেশ গানটিও গেয়েছিলেন নোবেল। হাবেভাবে সেই সব গানকেই জাতীয় সঙ্গীত মর্যাদা দেওয়ার ইঙ্গিত দেন বলে বিতর্ক উঠেছে নোবেলের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন-পুজো উদ্যোক্তাদের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠক 30 আগস্ট ইণ্ডোরে