সাত পাকে বাঁধা পড়েন কেন?

হিন্দু ধর্মের বিয়েতে আমরা দেখতে পাই, বর-কনেকে আগুনের কুণ্ডলীর চারপাশে ঘুরতে। একে সাত পাকে বাঁধা পড়া বলে। এর মানে হলো অগ্নিদেবতাকে বিয়েতে সাক্ষী হিসেবে রাখা হয়েছে। শুধু আগুনের চারপাশে ঘোরাই নয়, এ সময় বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিও দিতে হয় একে অপরকে। তবে এ সমস্ত রীতি কিন্তু শুধুই ধর্মীয় কারণে নয়। এর পিছনে আরও অনেক কারণ রয়েছে।

প্রথম পাক

দম্পতি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করেন, তারা যেন একে অপরের খাদ্য ও স্বাচ্ছন্দ্যের দায়িত্ব নিতে পারে। একসঙ্গে পরিবারের দেখভাল করতে পারে।

দ্বিতীয় পাক

দম্পতি প্রার্থনা করেন যেন তারা দুজন দুজনের সুখ ও সুস্থ জীবনের দায়িত্ব নিতে পারে।

তৃতীয় পাক

দম্পতি একসঙ্গে প্রতিজ্ঞা করেন, তারা যেন একসঙ্গে আধ্যাত্মিক কর্তব্য সম্পন্ন করতে পারেন। একে অপরকে ভালবাসতে পারেন আর সতীত্ব রক্ষা করতে পারেন।

চতুর্থ পাক

দম্পতি একে অপরকে পরিপূর্ণতা দেওয়ার ও পবিত্রতা রক্ষার প্রতিজ্ঞা করেন। যতদূর সম্ভব সবদিক থেকে একে অপরের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন।

পঞ্চম পাক

দম্পতি একে অপরকে ভালবাসা ও সম্মান দেওয়ার প্রতিজ্ঞা করেন।

ষষ্ঠ পাক

দম্পতি চিরকাল একসঙ্গে থাকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হোন।

সপ্তম পাক

উভয়ে ভগবানের আশীর্বাদ নিয়ে সম্পর্কের সূচনা করেন। এ সম্পর্ক সততা, দায়িত্ব ও বিশ্বস্ততায় পরিপূর্ণ।

আরও পড়ুন-বুধবার চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করবে চন্দ্রযান-2