পানশালার গায়কের রহস্যমৃত্যু! তারপর কী হলো জানেন?

বউবাজার এলাকার এক পানশালার রহস্যমৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। বরাহনগরের বাসিন্দা মৃত দেবাশিস বিশ্বাস নামে ওই গায়কের পরিবারের অভিযোগ, তাঁকে খুন করা হয়েছে। অভিযোগ পেয়ে পানশালার মালিক-সহ দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পানশালায় গিয়েছিলেন দেবাশিস। সেখানকার কর্মীদের দাবি, রাতে পানশালাতেই পড়ে যান তিনি। সহকর্মীরা তাঁকে ট্যাক্সিতে করে বাড়ি পৌঁছে দেন। মৃতের পরিজনদের দাবি, সহকর্মীরা যখন দেবাশিসকে নিয়ে বাড়ি পৌঁছন তখন তাঁর দেহে প্রাণ ছিল না। তাঁদের আরও দাবি, দেবাশিসের শরীরে আঘাতেরও চিহ্ন রয়েছে। রাতেই প্রথমে বরাহনগর থানা ও পরে বউবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ জানানো হয়। তারপর তদন্তে নামে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, 2015 সালে 12 মে লালগড় আন্দোলনের পোস্টার বয়, ছত্রধর মাহাতর যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দেয় মেদিনীপুর আদালত। একই সাজা প্রসূন চট্টোপাধ্যায় ও রাজা সরখেল-সহ ছত্রধরের বাকি পাঁচ সঙ্গীরও। UAPA-তে রাজ্যে সেটাই ছিল প্রথম সাজা ঘোষণা।

আদালতের সেই রায় শোনার আগে আত্মপক্ষ সমর্থনের চেষ্টাও করেননি ছত্রধর। গোটা বিচার প্রক্রিয়াকেই প্রহসন বলে বিদ্রুপ করেছিলেন তাঁর সঙ্গীরাও।

তখনই আদালত ছাড়ার সময় ছত্রধর জানিয়ে ছিলেন, তাঁর ও তাঁর সঙ্গীদের এই জেল যাত্রা জঙ্গলমহলের আন্দোলনকে স্তব্ধ করতে পারবে না। সাজাপ্রাপ্তদের পরিবার এবং মানবাধিকার সংগঠন APDR তারপরই জানিয়েছিল রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে যাবেন তাঁরা। সেই মতো হাইকোর্টে মামলা শুরু হয়। এতদিন পর রায় দিলো হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন-খুব শীঘ্রই জেল থেকে মুক্ত হতে পারেন ছত্রধর মাহাতো